মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৫ অক্টোবর ২০১৭

বিটিএমসি তে স্বাগত

১৯৭২ সালের ২৬ মার্চ বাংলাদেশ শিল্প প্রতিষ্ঠান (রাষ্ট্রিয়করণ) আদেশের ১০ নং অনুচ্ছেদের আওতায় (১৯৭২ সালের রাষ্ট্রপতি অধ্যাদেশ নং-২৭) বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস করপোরেশন (বিটিএমসি) প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৭২ সালের ১লা জুলাই হতে জাতীয়করণকৃত ৭৪টি মিল নিয়ে বিটিএমসি তার আনুষ্ঠানিক কার্য্যক্রম শুরু করে এবং বিটিএমসির লক্ষ্য ছিল জাতীয়করণকৃত এবং বিটিএমসির আওতাধীন মিল সমূহের কার্য্যক্রম সমূহ তদারকি, সমন্বয় ও নিয়ন্ত্রণ করণ; সেই সাথে নতুন শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন ও উন্নয়ন করণ। পরবর্তীতে বিটিএমসি আরও ১২টি মিল স্থাপন করে; যাতে করে বিটিএমসির মোট মিল সংখ্যা দাড়ায় ৮৬টি।

 

বিটিএমসির প্রশাসনিক বিষয়াদি ও সাধারণ নির্দেশনা পরিচালক পর্ষদের উপর ন্যাস্ত, যার প্রধান চেয়ারম্যান। সরকারী নীতি সাপেক্ষে করপোরেশনের কার্য্যাবলি সম্পন্ন করা হয়ে থাকে।

 

সরকারের বিরাষ্ট্রিয়করণ ও ব্যক্তিমালিকানায় হস্তান্তর নীতির আওতায় ১৯৭৭ হতে ২০১৩ সালের মধ্যে ৬৫টি মিল হস্তান্তর, বিক্রি ও অবসায়ন করা হয়। বিরাষ্ট্রিয়করণ ও ব্যক্তিমালিকানায় হস্তান্তর নীতির পূর্বে বাংলাদেশের সূতা ও কাপড় বাজারে বিটিএমসি একচেটিয়া ব্যবসা করত। বিরাষ্ট্রিয়করণ ও ব্যক্তিমালিকানায় হস্তান্তর নীতির ফলে বাজারের অবস্থা নাটকীয়ভাবে পরিবর্তন হয়েছিল।

 

বর্তমানে বিটিএমসির ২৪ টি টেক্সটাইল মিল আছে। ৬টি টেক্সটাইল মিল (৭টি ইউনিট) বর্তমানে সার্ভিস চার্জ সিস্টেমে চালু আছে এবং ৩২/১ হতে ৮০/১ কাউন্টের কটন/ভিসকস সূতা উৎপাদন করছে। আরও ৩টি মিল সার্ভিস চার্জ ও বিএমআরই এর আওতায় পুণঃ চালু করণের চেষ্টা চলছে। ২টি মিল (খুলনা টেক্সটাইল মিলস, খুলনা ও চিত্তরঞ্জন টেক্সটাইল মিলস, নারায়নগঞ্জ) টেক্সটাইল পল্লী স্থাপনের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে। চিত্তরঞ্জন টেক্সটাইল পল্লী ও খুলনা টেক্সটাইল পল্লীতে শিল্প প্লট ক্রয়ের জন্য আগ্রহী বিনিয়োগকারীগণ আমন্ত্রিত।

 

সার্ভিস চার্জ সিস্টেম হচ্ছে চুক্তিভিত্তিক, যেখানে চুক্তিকারী পার্টি তাদের নিজস্ব খরচে বিটিএমসির সংশ্লিষ্ট মিলে কাচামাল সরবরাহ করে এবং মিল তার লব্ধ কারিগরী সুবিধার মধ্যে পার্টির চাহিদা মোতাবেক বিভিন্ন কাউন্টের সূতা উৎপাদন করে। পার্টির কাছ থেকে মিল বেল প্রতি নূন্যতম সার্ভিস চার্জ প্রাপ্ত হয় এবং তৈরী পণ্য বিপণনের দায়িত্ব পার্টির উপর বর্তায়।

 

সহশ্রাব্দি উন্নয় লক্ষ্য অর্জনের আলোকে, ভিশন ২০২১ বাস্তবায়ন ও বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে রুপান্তরের নিমিত্ত স্থানীয় ও বিদেশী বিনিয়োগকারীগণকে যৌথ উদ্যোগ প্রকল্পের  মাধ্যমে আধুনিক স্পিনিং, ওয়েভিং, ডাইং, ফিনিশিং, কম্পোসিট টেক্সটাইল এবং টেক্সটাইল এক্সেসরিস শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের জন্য দৃষ্টি আকর্ষনের লক্ষ্যে বিটিএমসি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। বিনিয়োগকারীগণের জন্য যৌথ উদ্যোগ নীতিমালা প্রস্তুত কার্য্য অব্যহত রয়েছে। বাজারের চাহিদার আলোকে আধুনিক মিল স্থাপনের লক্ষ্যে আগ্রহী স্থানীয় ও বিদেশী বিনিয়োগকারীগণ প্রস্তাব সহ আন্তরিকভাবে আমন্ত্রিত।


Share with :
Facebook Facebook